>নায়িকা হওয়ার জন্য (বড় গল্প)
আজকাল ফাইভস্টার হোটেল মানেই এলাহি ব্যাপার। তারউপর ফাইভস্টার ডিলাক্স মানে আরো বিলাসবহূল। হোটেলের এক একটা স্যুট এর কমকরে ভাড়া পনেরো থেকে বিশ হাজার। কজনের ভাগ্যে জোটে? এক রাত্রি পেরোনো মানেই পকেট থেকে অতগুলো টাকা খস করে বেরিয়ে গেল। সেখানে পরপর তিনরাত্রি স্যুট টা বুক করেছে নাম করা ফিল্মি প্রোডিউসার রুদ্রনীল সেনগুপ্ত। তাও আবার রিয়ার জন্য। সাধারন একটা মেয়ে, যার এখনো সিনেমা জগতে প্রবেশই ঘটেনি। নায়িকা না হয়েই এই। আর নায়িকা হলে তারপরে? তখন বোধহয় রাজপ্রাসাদও ছোট পড়ে যাবে রিয়ার কাছে। ভাবতে ভাবতেই আনন্দে আর খুশীতে রিয়ার মনটা গর্বে ভরে উঠছিল। এই না হলে ফিল্মি জগত? অনেক ঘাম ঝড়িয়ে এ লাইনে নাম কিনতে হয়। তবেই না লোকে পয়সা দিয়ে টিকিট কেটে হলে ঢোকে। আজকের রিয়া যখন কালকের স্টার হবে তখন ওর জন্যও লোকে লাইন দিয়ে দাঁড়িয়ে থাকবে টিকিট কেনার জন্য। ওফঃ ভাবতে ভাবতেই সারা শরীরে যেন রোমাঞ্চ অনুভব করছে রিয়া। ধন্যবাদ রুদ্রনীলকেও। এই অফারটা শেষ পর্যন্ত না পেলে এ জীবনে নায়িকা হওয়ার সাধ অপূর্ণই থেকে যেত। ভাগ্যিস রিয়াকে দেখেই চোখে পড়ে গেছিল রুদ্রনীলের। একেবারে পাকা চোখ। নামকরা কত হিরোয়িনকেই যে ও সুযোগ দিয়েছে তার কোন ইয়ত্তা নেই। প্রস্তাবটা পেয়েই সঙ্গে সঙ্গে লুফে নিতে দেরী করেনি রিয়া। হাজার হোক এ রকম নায়িকা হওয়ার সুযোগ জীবনে কতজনের আসে? রিয়া যে পেয়েছে, তারজন্যই ওকে একটু খুশী করার আবদার মেনে নিতে হয়েছে রিয়াকে। তিনরাত্রি রিয়ার শরীরের রসধারার স্বাদ গ্রহন করবে রুদ্রনীল। রিয়ার ওপরে নিজের বীর্যধারা বর্ষন করবে রুদ্রনীল। আবদার এটুকুই। তারপর তো রিয়া স্বনামধন্য নায়িকা। হাজার প্রোডিউসারের লাইন পড়বে ওকে নতুন বইতে সই করার জন্য। রুদ্রনীলকে হয়তো মনেও রাখবে না। রিয়াও চলে যাবে নাগালের অনেক দূর। অনেক নায়ক তখন ওর প্রেমে পড়বে। আর পুরোন কথা মনেও থাকবে না। নায়িকা হবার সুবর্ণ সুযোগ নিতে হলে এটুকু রিস্কতো নিতেই হবে, নইলে ভাগ্যের দরজা খুলবে কি করে?
রুদ্রনীল ওকে বলেছিল-তোমাকে দুদিন সময় দিচ্ছি, আমাকে ভেবেচিন্তে উত্তর দিও।
রিয়া একমূহূর্ত দেরী করেনি। কয়েকটা ছোটখাটো মডেলের রোল করে আর যেন পোষাচ্ছে না। এইবার একটা বড় সুযোগ নিতেই হবে। দরকার হলে নিজের শরীর বিলিয়েও। এমন সুযোগ কোন কারনেই হাত ছাড়া করা যাবে না।
সকালবেলা রিয়াকে ফোন করে বলেছিল রুদ্রনীল। -তোমার জন্য স্যুট বুক করা আছে। আমি বিকেলে গাড়ী পাঠিয়ে দেব। তৈরী হয়ে চলে এস।
রিয়া তারপর সেজেগুজে এখানে। এখন শুধু রুদ্রনীলের জন্য অপেক্ষা। কখন ও এখানে আসবে।
বিছানাটা যেন তৈরীই রয়েছে। সুন্দর চাদর দিয়ে মোড়া। এখানেই রুদ্রনীলের বীর্যধারায় বর্ষিত হবে রিয়া। ও পালঙ্কটা ভালো করে দেখছিল। ভাবলো রুদ্র আসার আগে একবার বার্থরুমেই নিজেকে প্রস্তুত করে নিলে ভালো হয়। উলঙ্গ হয়ে স্নান করার আগে আঙুল দিয়ে নিম্নাঙ্গের অন্তঃস্থলে কনট্রাসেপটিভ্ পিলটা ঢুকিয়ে দিল। ওটা গলতে একমিনিট। তারপর রুদ্রের নির্দেশ মতন ব্লাউজ, ব্রা আর শায়া খুলে শুধু শাড়ীটা জড়ানো থাকবে পেঁয়াজের খোসার মতন। রুদ্রনীল ওটা হাত দিয়ে আসতে আসতে খুলবে। তারপরেই শুরু হবে আসল ক্লাইম্যাক্স।
রুদ্রনীল ড্রিঙ্ক করে। রিয়াকে বলেছিল-আমার সঙ্গে ড্রিঙ্ক করতে হবে কিন্তু তোমাকে। তারপর আমরা বিছানায় যা করার করব।
সেই কোন একসময়ে দুবোতল বিয়ার খেয়েছিল রিয়া বন্ধুর পাল্লায় পড়ে। আজ যদি রুদ্রর সাথে একটু সুরার সঙ্গ দিতে হয় ক্ষতি কি? ফিল্ম লাইনে এসব তো আকছাড় চলে। মিনাকুমারীকে দেখেনি? মদ ছাড়া তো চলতই না মিনাকুমারীর। ফিল্মলাইনে স্ট্যাটাস বজায় রাখতে হলে একটু আধটু এগুলোর তো অভ্যাস রাখতেই হবে। রিয়া ভাবছিল আচ্ছা ওর সামনে নগ্ন হয়ে বসে যদি মদ খাওয়া যায় তাহলে কেমন লাগবে? নিশ্চই দারুন। একহাতে গ্লাস, আর এক হাতে সিগারেট। কোনদিন হয়তো কোন ফিলমি ম্যাগাজিনের কভার পেজে এরকম একটা ছবি বেরোবে রিয়ার, হাজারো সিনেমা প্রেমিকের হৃদয় চুরী করে নেওয়ার জন্য। এক একটা পোজে শুধু আলোড়নের পর আলোড়ন তুলতে থাকবে রিয়া। তখন রিয়া ও তো স্বনামধন্য নায়িকা। যা করবে তাতেই লোকে বনে যাবে পাগল। ফটোগ্রাফার রিপোর্টারদের হূড়োহড়ি, চারিদিকে শুধু ফ্ল্যাসের পরে ফ্ল্যাস ক্যামেরার আলো। খবরের কাগজে একটা হেডিং-আজকের নায়িকা বলতে একটাই নাম শুধু রিয়া রিয়া এন্ড রিয়া। ওর ধারে কাছে কেউ নেই।
ইতিহাসকে আগাম দেখার জন্য বার্থরুম থেকে বেরিয়ে এসে নিজের নগ্ন দেহটা আয়নায় দেখছিল রিয়া। তখনও শাড়ীটা পড়া হয় নি। যেন ভঙ্গিমায় মাদক রস উপচে পড়ছে। মনোহরিনী ভঙ্গি যেন রুদ্রনীল সেনগুপ্তকে মাতাল করে দেবে একটু পরেই।
ক্রমশঃ———
আচ্ছা রুদ্রনীল কি বিছানায় অনেক্ষণ ধরে করবে? নাকি অল্প করেই রিয়াকে ছেড়ে দেবে বাকী রাতদুটোর জন্য। এসব সিনেমা লাইনের প্রোডিউসার গুলো বড্ড বেশী কামুক হয়। নতুন হিরোয়িন দেখলেই পেনিস তড়াক করে লাফিয়ে ওঠে। নায়িকা করার আগে যত পারো শুষে নাও। সিনেমার নামে যেন দেহটাও কিনে নিয়েছে সাথে সাথে। রিয়া শুনেছে, শরীর না বিলিয়ে রুপোলি পর্দার নায়িকা হওয়া বড্ড কঠিন। তাও যদি বড় কোন হিরো হিরোয়িনের মেয়ে হয়। কামুক প্রোডিউসাররা ওদের গায়ে হাত দিতে ভয় পায়। কারন ওরা তো নামি তারকার মেয়ে। হাত দিলে যদি গর্দান চলে যায়।
রিয়ার কপালে এমন ভাগ্য জোটেনি। অনেক লড়াই করে তবে এ জায়গাটায় আসতে পেরেছে। বড় স্টারের বেটী হলে কি আর এত স্যাক্রিফাইস করতে হোত? তখন সহজেই জুটে যেত বড় বড় ছবির অফার। নিজের শরীর উন্মোচন করে প্রোডিউসারের সাথে শরীরি খেলায় মেত উঠতে হোত না। রুদ্রনীলকেও মুখের উপর বলে দিত-আপনি কার সাথে কথা বলছেন জানেন? চেনেন আমার মা বাবাকে। আপনার লাইসেন্সটাই ক্যানসেল হয়ে যাতে পারে এক্ষুনি। আপনি আমার সাথে শুতে চাইছেন? হাও ডেয়ার ইউ টকিং লাইক দ্যাট। আপনার সাহস তো কম নয়।
কিন্তু সে আর হোল কোথায়? অগত্যা তিন রাত্রি এই হোটেলে রাত কাটানো ছাড়া উপায় তো নেই। শরীরটাকে বিলিয়ে দিয়ে এবার খুব শিঘ্রীই পদার্পন ঘটবে দুষ্টু মিষ্টি নায়িকা মিস রিয়া মুখার্জ্জীর।
আয়নার সামনে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে রিয়া এসবই ভাবছিল, আর অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছিল রুদ্রনীল সেনগুপ্তর জন্য। এবার তাহলে ওর আসার সময় হোল বলে।
রিয়ার মোবাইলটা বাজছিল। হ্যালো বলতেই চেনা গলাটা শুনতে পেল। গলাটা রুদ্রনীলের। ওকে উইশ করছে। যেন অভিবাদনের কি সুন্দর কায়দা।–রিয়া ডারলিং। আর ইউ রেডী? আমি আসছি তাহলে। থ্যাঙ্ক ইউ তোমাকে, আমার প্রস্তাব গ্রহন করার জন্য। এবার দেখবে কেউ আটকাতে পারবে না তোমাকে। তোমার ফিল্মী কেরিয়ার সার্থকময় হয়ে উঠুক। রিয়া অল দ্যা বেস্ট।
কে কাকে থ্যাঙ্ক ইউ জানাচ্ছ। এতো রিয়ার স্বপ্ন। যা সফল হতে চলেছে শীঘ্রই। রুদ্রনীল সেনগুপ্ত ওকে সাফল্যের দরজা চিনিয়েছে। থ্যাঙ্ক ইউ তো ওর দেবার কথা। আর সেখানে কিনা রূদ্রনীল? মোবাইলটা বিছানায় রেখে রিয়া হাঁসছিল আর ভাবছিল।
সাদা সিল্কের শাড়ীটা ও গায়ে জড়িয়ে নিল। যে করেই হোক রুদ্রকে আজ খুশী করতেই হবে। কৃতজ্ঞতা রিটার্নের পদ্ধতিটা যদি সেক্সের মাধ্যমে বিলিয়ে দেওয়া যায় তাহলেই কেল্লা ফতে। আর পেছনে ফিরে তাকাতে হবে না রিয়াকে। তখন শুধু মুঠো মুঠো টাকা আসবে সুটকেশ ভর্তি করে। রিয়ার সাথে সাক্ষাত করার জন্য কাউকে অ্যাপোয়েন্টমেন্ট নিতে হবে আগে থেকে। সি উইল বি দা টপ অ্যাকট্রেস ইন কলকাতা। লোকে হূমড়ী খেয়ে পড়বে ওকে দেখার জন্য।
নিজেই নিজেকে উইশ করছিল, বুড়ো আঙুলটা আয়নার সামনে তুলে ধরে নিজের মুখ দেখতে দেখতে। শাড়ীর নীচে বুকদুটো তখন বেশ উদ্ধত হয়ে রয়েছে। ওর বুকের সাইজটা পারফেক্ট। ৩৫-৩৬ হবে। কোমরটা বেশ সরু। যেন হাতের মুঠোয় ধরা যাবে। হাত দুটো ওপরে তুলে একবার আড়-মোড়া ভাঙল রিয়া। বগলের নীচে যে একগুচ্ছ ঝোপের সৃষ্টি হয়েছিল ওটা আজ সকালেই ব্লেড দিয়ে চেঁচে সাফ করেছে রিয়া। এখন বেশ সুন্দর লাগছে বগলের তলাটা। রুদ্র এখানে নিশ্চই একটা চুমু খাবে। তারপর আসতে আসতে ওর সারা শরীরেই চুমুর বৃষ্টিপাত ঘটাবে। যা শরীর বানিয়েছে, যে প্রোডিউসার দেখবে, সেই কাত হয়ে যাবে।
নিজেকে দেখছিল আর ভাবছিল কখন ওর আগমন ঘটবে? রিয়া যে উদগ্রীব হয়ে বসে আছে রুদ্রর জন্য।
ডোরবেলটা বাজতেই রিয়া দরজা খুলল। সামনে দাঁড়িয়ে আছে, রুদ্রনীল সেনগুপ্ত। পরণে খয়েরী রঙের স্যুট। কে বলবে ও প্রোডিউসার। এমন সুন্দর চেহারা যে কোন হিরোকেও হার মানিয়ে দিতে পারে অনায়াসেই। রিয়াকে একদৃষ্টে দেখছিল। যেন ডাইং ফর সী। ওর লাইফের একমাত্র ড্রীম।
-কি দেখছেন?
-ভাবতেই পারছি না তুমি আমার পরের ছবির নায়িকা। কালই তোমাকে আমি সই করাব। অ্যাডভান্স পঞ্চাশ হাজার টাকা। খুশী তো?
-খুশী মানে ভীষন খুশী।
-কাল হিরো আসছে তোমাকে দেখতে। মিষ্টার দীপক কুমার। খুব হ্যান্ডসাম।
-ও রিয়েলি?
-হ্যাঁ। তবে বইতে অনেক বেডরুম সীন আছে। সবকটাই বেশ জমকালো। তুমি রাজী?
-ইয়েস। কেন নয়। আমি রাজী।
-বাঃ গুড গার্ল। আমার রিয়াকে বেছে আমি তাহলে ভুল করিনি। কি তাইতো?
রিয়ার মুখে হাঁসি। এখন তাহলে প্রতিদানের মূহূর্তটাকে স্মরনীয় করে তোলা যাক।
রুদ্রনীল ওকে জড়িয়ে ধরেছে। এবার ওকে একটা চুমু খাবে। রিয়া মুখটা বাড়িয়ে দিয়েছে। শরীরটা বেশ সিরসির করছে। রুদ্র ওর ঠোটটা ঠোটে নিয়ে চুষছে।
-তোমাকে ছমাস ধরে খুজেছি। পাইনি। বলতো এতদিন কোথায় ছিলে? আই অ্যাম রিয়েলি হ্যাপি ফর ইউ। এবার চল রিয়া। একটু এনজয় শুরু করা যাক, আজকের রাতটার জন্য।
-চলবে।——
রিয়া ওর শরীরটাকে পুরো সঁপে দিয়েছে রুদ্রর কাছে। হিরোর থেকেও গাঢ় ঘন চুমু খাচ্ছে রুদ্র। ওর শরীরের মধ্যে একটা আলাদা রকম জোশ। প্রচন্ড রকম সেক্স। যেন কামের আসক্তি থাকলে তবেই চুমু খাওয়ার ধরণ এরকম হয়ে থাকে। রিয়া শুধু প্রতিদান দিচ্ছে। জানে প্রতিদানে যেন কোন খুঁত না থাকে। রুদ্র খুশী হলেই তবে ওর নিশ্চিন্তি। রাতটুকু ভরপুর এনজয়মেন্ট। তারপর কালকে নগদ অ্যাডভান্স। একেবারে কড়কড়ে পঞ্চাশ হাজার টাকা। রিয়াকে আর পায় কে? ওতো সব জেনেশুনেই রুদ্রর প্রস্তাবে রাজী হয়েছে। মনপ্রাণ ঢেলে রুদ্রকে খুশী করা শুরু করেছে এখন থেকে। যেন কোন ফাঁক না থাকে।
বুকদুটো পুরো লেপ্টে গেছে রুদ্রর শরীরের সাথে। চুম্বনের গভীর স্বাদ নেবার সাথে সাথে রুদ্র হাত দিয়ে ধরে ফেলেছে রিয়ার বুকদুটোর একটাকে। রিয়া বুঝতে পারছে রুদ্র হাতে নিয়ে বুকদুটোকে চটকাতে চাইছে। প্রতিবাদ না করলে বুঝে নিতে হবে সে কি চাইছে? সন্মতি যখন পেয়েই গেছে রুদ্রও তাই হাত দিয়ে রিয়ার বুকটাকে চটকাতে শুরু করেছে। টিপতে টিপতে, চটকাতে চটকাতে দলাই মালাই আসতে আসতে বাড়তেই চলেছে। প্রশ্রয়, ইন্ধন যেন রুদ্রকে স্যাটিশফাই করছে একদম প্রথম থেকে। ওঃ ওয়াট এ বিগিনিং।
-তোমার বুকদুটো এত সুন্দর রিয়া। হাতে না নিলে বুঝতেই পারতাম না। ওয়াট এ লাভলি ইয়োর ব্রেষ্ট। আমি তারিফ না করে পারছি না।–তুমি ভয় পাচ্ছো রিয়া?
-না তো?
-আর ইউ ফিলিং ইজি?
-অফকোর্স।
-তাহলে চল। এবার একটু ড্রিংকস নিয়ে বসা যাক। কি খাবে স্কচ্ না হূইস্কি?
-যেটা খুশী।
-ড্রিংক করার হ্যাবিট আছে তোমার?
-একটু আধতু।
-ফিল্ম লাইনে এগুলো কিন্তু খুব নরম্যাল। না থাকলে এখন থেকে নিজেকে প্রস্তুত করে নাও। আমার হিরোয়িনরা ড্রিংক না করলে আমার ভাল লাগে না। ধাপে ধাপে নিজেকে তৈরী করে নিতে হবে। আর ইউ রেডী?
-আমাকে পরখ করছেন? আমি হ্যাঁ বলছি তো।
-স্মার্ট গার্ল। (হাঁসতে হাঁসতে) তোমাকে সত্যিই পরখ করছি।
রুদ্র আবার ওর ঠোট ঠোটে নিল। দ্বিতীয়বার অনুরাগের ছোঁয়া দিতে রিয়া প্রস্তুত। কি দূর্দান্ত সমর্পণ। রুদ্রকে গরম করে দিচ্ছিল শুরু থেকেই। হোটেলে ডাকাটা যেন ভীষন ভাবে সার্থক হয়েছে।
হঠাতই কেমন যেন মনে ধরেছে রিয়ার রুদ্রকেও। এত সুন্দর চেহারা যার, পাবলিকের চোখে এও তো হীরো হতে পারে সহজে। তাহলে কেন শুধু শুধু ভাড়া করা হীরো? বলে দেখবে নাকি একবার রুদ্রনীল সেনগুপ্তকে। কি জবাব হবে এর উত্তরে?
-আপনিও তো স্মার্ট। নিজের ছবিতে নিজেই হীরো হিসেবে নামেন না কেন? বেশ মানাবে আপনাকে।
-তাহলে তো আবার জুটি বাঁধতে হবে। আমার যে একটা জুটি পচ্ছন্দ নয়। (হাঁসতে হাঁসতে) তারপরে আবার হিরো যদি ভিলেন হতে রাজী না হয়?
-বাবা আপনি তো বেশ মজা করেন?
-মজা করি? না না আমরা রিয়েলটা করি। হিরোরা যেটা করে সেটা কৃত্তিম। ওরা ঐ কৃত্তিম স্বর্গরাজ্যের মধ্যে নিজেদের আটকে রাখে। দেখনি কখনো? সিনেমায় হীরোর চুমু খাওয়ার দৃশ্যকে। কেমন ডিরেক্টরের হাতের পুতুল হয়ে দৃশ্যগুলোকে পালন করে। আমাদের মতন সর্বক্ষমতাবান হতে ওরা যে পারে না। ওরা শুধু ইমেজ বিল্ডিং করে। যদি একবার কাগজে কোন গসিপ কলাম বেরিয়েছে, ফ্যান ক্লাবের সদস্যরা পাবলিসিটি শুরু করে দিয়েছে, ব্যাস, তাহলে আর পায়ে কে? ওটাইতো রটনা। হিরো কোন টাটকা ভাবী নায়িকাকে ভোগ করছে, বহূ নায়িকা ভোগে নিজেকে অভ্যস্ত করে ফেলেছে, যা শুনেছ সবই পাবলিসিটি স্টান্ট। ওগুলো সত্যি নাকি?
রিয়া অবাক হয়ে শুনছে। যেন স্তন্ভিত। বাক্যহারা।
-আপনার হীরো দীপককুমারও তাই?
-ওতা একটা মরা গাঙ। এমন একটা সমুদ্র, যেখানে জোয়ার আসে না। তুমি যদি তোমার শরীরের সবকিছু প্রস্তুত করে ওকে স্বাগতম জানাও, তাহলেও দেখবে প্যান্টের তলায় ওর কোন ঢেউ জাগছে না। আমরা ওটা পারিনা। আমাদের এটাই সব থেকে বেশী আনন্দ। যা হবে সব কিছু রিয়েল। কি বল? যেমন তোমায় পেয়েছি। আজ রাতটুকু তোমার সঙ্গ পাব, আমার বই এর পয়সাতো আর্ধেক এখানেই উঠে যাবে। তোমার কাছে এইজন্যই তো আবদারটা রেখেছি। বল এখনো বলছি। তুমি আনহ্যাপি নও তো?
-না না বার বার কেন ওকথা বলছেন? আমি তো জেনেই এসেছি।
রুদ্র হাঁসছিল, এবার একটা বেনসন হেজেস সিগারেট ধরালো। রিয়ার দিকে প্যাকেটটা বাড়িয়ে বলল-খাবে একটা?
রিয়াও প্যাকেট থেকে একটা সিগারেট বার করে ঠোটে গুজল। রুদ্র লাইটার জ্বালিয়ে বাড়িয়ে দিল রিয়ার ঠোটের দিকে। রিয়া সিগারেট ধরিয়ে ধোয়া ছাড়তে লাগল রুদ্রর মতন।
-তুমি স্মোক কর জানতাম না।
রিয়া মনে মনে বলল-সবই তো আপনার জন্য করছি।
খুব কাছে টেনে, রিয়াকে পাশে বসিয়ে, ওর ঠোটে চুমু খেয়ে, আর বুকে আরএকবার হাত দিয়ে রুদ্র বলল-শুধু শাড়ীটী পড়ে রয়েছ তোমাকে দারুন লাগছে। ডিরেক্টরকে বলব এরকম একটা সীন রাখার জন্য ,তোমার নতুন ছবিতে।
রিয়া চুম্বনের সাড়া দিচ্ছিল, বুঝতে পারছিল একটু পরেই নিজেকে উলঙ্গ করে পরীক্ষা দিতে হবে রুদ্রর সামনে। তবু ভাল রুদ্র তো আর ওকে রেপ করছে না। সবই তো স্বেচ্ছায় হচ্ছে ব্যাপারটা। বুকের উপর হাত বোলাতে বোলাতে রুদ্র বলল-তোমার এই জিনিষটা কিন্তু খুব ভাল।
-আমার বুকদুটোকে মিন করছেন?
-হ্যাঁ কেন বলতো?
-বুক ছাড়া নারীর কোন অস্তিত্ব হয় না তাইতো?
-শুধু তাই নয়। আমি অনেক হিরোয়িনকে জানি ওরা বুক উঁচু করার জন্য বুকে প্যাড লাগায়। সেদিক দিয়ে তুমি হান্ড্রেডে হান্ড্রেড। আমার কাছে ফুল মার্কস পেয়েছ তুমি।
রিয়াকে রুদ্রর কথা শোনার পর বেশ খুশী দেখায়। ও রুদ্রকে আরো খুশী করার জন্য বলে-শাড়ীটা খুলব?
-না না এখন না ডারলিং। একটু পরে। আগে ড্রিংকসটা করি।
যেন আবরণ থাকলে নিরাবরণ বেশী মধুর হয়। রিয়া রুদ্রর কথামতই রুদ্রকে কম্পানী দিতে লাগল। স্কচ হূইস্কিটাকে রুম সার্ভিসে আনিয়ে গ্লাসে ঢালার পর রিয়া মুখ ঠেকিয়ে রুদ্রর গেলাসটাকে প্রসাদ করে দিল। রুদ্র স্কচ পান করতে লাগল সেই সাথে রিয়াও। মদ খেতে খেতে দুজনের সিগারেট খাওয়াটাও চলছে জোড় কদমে। রিয়াকে একটু কৌতূহলে ফেলে রুদ্র একটা কথা বলে ফেলল। রিয়া বুঝতে পারল না ব্যাপারটা কি? রুদ্র তখনকার মতন চেপে গেল। ওকে বলল-তোমাকে একটা কথা বলব রিয়া। আমার কথাটা রাখবে?
-কি?
-তুমি যদি—
-আমি যদি কি? পুরোটা বললেন না?
-না থাক। এখন নয়। পরে বলব।
রিয়া বুঝতে পারল না। রুদ্র বলল-এবার একটু শাড়ীটা খোল। তোমাকে নেকেড অবস্থায় দেখি। কেমন লাগে?
রিয়া উঠে দাঁড়িয়েঁ শাড়ীটা আসতে আসতে খুলতে লাগল।
চলবে——–