>কৈশোরকালীন সময়ে যৌনতার প্রতি পুরুষের আগ্রহ এবং আকর্ষণ জন্মায় বেশি। ১৭থেকে ২৫ বছর সময়কালে আবার পুরুষ কিংবা নারী উভয়েই যৌনতার প্রতি সবচেয়ে বেশি আগ্রহি থাকে। এই সময়ের মধ্যে বয়ঃসন্ধি পুর্ণ হয় এবং নারী পুরুষের যৌনাঙ্গ সুসংগঠিত হয়।এই সময়কার নারী পুরুষের দৈহিক পরিবর্তন বা যৌন ব্যবহারিক পরিবর্তনগুলো হলো–
মেয়েদের মাসিক চক্র শুরু হওয়া ।
ছেলেদের স্বপ্নদোষ হতে থাকা ।
মেয়েদের যোনির ঠোঁট বড় হতে থাকা ।
মেয়েদের কিটোরিস আরো দৃঢ় হয় ।
ছেলেদের অন্ডকোষ এবং লিঙ্গ আরো দৃঢ় হয় ।
মেয়েদের স্তনের আকার বড় হয় ।
উভয়ের উচ্চতা বৃদ্ধি পায় ।
উভয়েরই গলার স্বরে পরিবর্তন হয় ।
উভয়েরই শরীরের আকার পরির্বর্তিত হয় ইত্যাদি ।
হরমোন নিঃসরণ জনিত কারণে এই সময়ে ছেলে মেয়ে উভয়েরই যৌন ইচ্ছা দেখা দিয়ে থাকে । প্রাথমিক এবং দ্বিতীয় স্তরের পরিবর্তনের পর একটি ছেলে পুরুষ এবং একটি মেয়ে নারীতে পরিপূর্ণতা লাভ করে
প্রাথমিক পরিবর্তন–
গলার স্বরে পরিবর্তণ ।
বগলে চুল জন্মানো ।
নাভীর নিচে চুল জন্মানো ।
মাংসপেশি দৃঢ় হওয়া ।
ছেলেদের বুকে লোম জন্মানো ।
মাথার চুল ঘন হওয়া ।
স্তনের আকৃতি সুগঠিত হওয়া ।
দ্বিতীয় স্তরের পরিবর্তন–
লিঙ্গ দৃঢ় হওয়া ।
যৌন ইচ্ছার সৃষ্টি ।
যৌনতার প্রতি তীব্র আকর্ষণ ।
স্তনের স্ফীতি ।
জরায়ুর সুসংগঠন ।