>এমনি এক ঝড়ো সন্ধ্যা ছিলো সেদিন। আজ হঠাৎ এমন দিনে সেই দিনের কথা মনে পড়ে গেলো। নিজেকে পাপের কুতুব মনে হলেও যেহেতু পরুষতান্ত্রিক সমাজে আমি বড় হয়েছি এটাকে গায়ে না লাগানোর শিক্ষা ছোট বেলা থেকেই শিখেছি। মদ্ধ্যবৃত্ত সমাজে মেয়েরা ঘরে বাইরে ধর্ষনের শীকার হয় এটা নতুন কিছু না। ধর্ষন এ সমাজের নারীদের অক্সিজেন এর মত হয়ে গেছে। নিজের ঘরের মা রাও বাবার হাতে অনেক রাতেই ইচ্ছার বিরুদ্ধে ধর্ষিত হয়েছে। বাবারা যে পুরূষ আর মারা যে নারী।নারী মানেই দেহ ভোগের যন্ত্র। এসব বুলি ঝেড়ে লাভ নেই। আজ আমি আমার এক পাপের কথা বলব।
তখন আমি সবে ভার্সিটি তে উঠেছি। আশে পাশের রঙ্গীন দুনিয়ায় অনেক কিছু দেখছি। ক্যাম্পাসে উঠেই গাজার আসর চিনে ফেলেছি। ক্লাস এ কোনদিন গিয়েছি বলে মনে পড়ে না। এমন সময় আমার সম্পর্ক গড়ে ঊঠে ক্যম্পাসের এক মেয়ে সর্ণালীর সাথে। ও আমাকে নেশার দুনিয়া থেকে সরানোর অনেক চেষ্টা করেছিল কিন্তু আমার দুনিয়া টা নেশার রাজ্যেই হারিয়ে যাচ্ছিলো। তবুও জানি কোন এক মায়ায় মেয়ে টা আমাকে অনেক বেশীই ভালো বেসে যাচ্ছিলো। কিন্তু হতভাগা আমি কখনোই সেটা বোঝার চেষ্টা করি নাই। আমাদের সম্পর্ক তখন মাস চার এক। তখন আমাদের ভেতরে কিস ছাড়া আর কিছুই হয় নাই। আমি নেশা নিয়ে এততাই বিভর ছিলাম যে ওই সব চিন্তার সময় ছিলো না। এক রাতে ওর সাথে ফোন এ কথা বলছিলাম। অনেক রাত পর্যন্ত কথা বলছি। এক সময় কেন জানি যৌন চাহিদা অনুভব করছিলাম। আমি অবলিলায় অকে বলে ফেললাম তুমি কি আমার সাথে সেক্স করবে? ও শুধু বলল তোমার জন্য আমি সব এ করব শুধু তুমি ভালো ইয়ে যাও। আমি কেন জানি অনেক খুশি হলাম। আমি পড়ের দিন ফ্রেন্ড কে বললাম আমার বাসা লাগবে। শূভ আমাকে বলল ওর বাসা আগামী মাসে খালী হবে। আমি অপেক্ষায় দিন গুনতে লাগলাম।
অবশেষে আসল সেই দিন। শুভ ফোন দিয়ে বলল কালকে যেতে পারি সকাল ১০ টায় । শর্ত এক্টাই মদ খাওয়াইতে হবে। আমি রাজী হয়ে গেলাম। আমি সর্ণালী কে ফোন দিয়ে জানিয়ে দিলাম সকাল এ আসতে। পরের দিন সকাল এ গোসল করে বের হয়েছি। ও আসল। আমি ওকে নিয়ে রিক্সায় শুভর বাসার দিকে রওনা দিলাম। শুভর বাসায় যাওয়ার পথে আমি খানিক গাজা আনার জন্য ফোন দিলাম অরন্য কে। ও বল আচ্ছা ঠিক আছে। আমরা যখন শুভর বাসায় পৌছাইলাম তখন শুভ ঘুম থেকে ঊঠে চা বানাচ্ছিল আমাদের জন্য। আমরা গল্প শুরূ করলাম। শুভ বলল ও চলে যাবে। আমি বললাম না একটু দারা অরন্য গাজা আনতে ছে। খেয়েই যা। আজকেই আমি শেষ খাব। আমার কথা শুনে সর্ণালী বলল আজকেই শেষ খাবা? আমি ওকে ছুয়ে বললাম হ্যা। ও অনেক খুশি হল।
অরন্য আসল। শুভ গাজা বানাচ্ছিল। এর পর আমরা গাজা খেতে বলসলাম। ১২ টা স্টিক এর মত খাওয়ার পর অনেক পিনিক হয়ে গেল। বললাম ওকে আর না। সর্ণালী শুধু দেখছিল। এর পর আমি সর্ণালী কে নিয়ে রুম এ গেলাম। গিয়ে বললাম তুমি বস আমি ফ্রেস হয়ে আসি। আমি রুম থেকে বেড়োলাম। আমি তততক্ষনে আমার ভেতরে নাই। আমি পুর্ণ ভাবে নেশার রাজ্যে। আমি জানি না কেন জানি হঠাৎ আমি চেঞ্জ হয়ে গেলাম। আমি শুভ কে ডাক লাম। ও আসল। আমি বললাম চল আজকে আমি তোরে মদ খাওয়াব। ও বলল এখন? আমি বললাম হ্যা। আমি শুভ আর অরন্যকে কে নিয়ে ঘরে আসলাম। এসে বললাম সর্নালীর মত মদ আর পাবি? চল সবাই মিলে খাই। আমার এই কথা শূনে সর্নালী দারীয়ে গেল। আমি জানি না আমার কি হয়েছিল। আমি সর্নালীকে ধাক্কা দিয়ে বিছানায় ফালায়া দিলাম। সর্নালী জোড়ে কেদে উঠল। আমার কানে তখন ওর কান্নার শব্দ পৌছাচ্ছে না। আমি গিয়ে সর্নালীর উপরে সুয়ে কিস করা শুরু করলাম। আমাকে ধাক্কা দিয়ে ফালায়া দিল সর্ণালি। এর উঠে যেতে ধরল আর তখনই শুভ আর অরন্য অকে ধরে ফেলল। শুভ ওড় হাত ধরে ফেলল । আর অরন্য অর পাজামা খুলে ফেলল। আর আমি উঠে কিয়ে ওকে ধরে বিছানায় আবার শোয়ালাম। সর্ণালী কেদেই চলেছে। এর পর আমি ওর হাত ধরে রাখলাম।। আর অরন্য অর পা। আর শুভ উঠে ওর কামিজ খুলল। খুলে ওড় দুধ গুলো নিয়ে পাগলের মত খেতে লাগল। আর আমি অমানুষের বাচ্চা দেখছিলাম। এর পর শুভ ওর প্যান্ট শার্ট খুলে ফেলল। খুলে সর্নালীর যৌন দার চুষতে লাগলা। সর্নালীর চোখ দিয়ে পানি পড়ছিল। ও স্তব্দ। এর পর শুভ ওর পেনিস সর্নালীর পুসি তে ধুকাতে গেল আর সর্নালি অনেক জোরে চিল্লিয়ে উঠল। আমি অনেক মজা পেলাম সর্নালির চিৎকারে। এর পর বিছানা রক্তাক্ত। কিন্তু শূভ কুকুরের মত ভোগ করতে লাগল সর্নালীর দেহ। এর পর একে একে আমরা তিন জন ই ওর দেহ ভোগ করলাম। সর্বশেষে আমি করলাম। আমার করা শেষ হলে সর্নালি বলল তুমি খুশি হয়েছো? আরো কিছু চাও আমার কাছ থেকে? আমি তখন ওর গায়ের উপড়ে শুয়ে পড়লাম। আর শুভ আর অরন্য ঘর থেকে বেড়িয়ে গেল। সর্নালী ধিরে ধিরে উঠে কাপড় চোপড় পড়ে নিলো। আমাকে বলল , “তুমি আমাকে থুয়ে আসবে না আমি একা যাব?” আমি কোন কথা বল্লাম না। আমই শুয়ে রইলাম। সর্ণালী বেড়ীয়ে গেল। আমি ঘুমিয়ে পড়লা। ঘুম থেকে উঠে আবার খানিক টা গাজা খেয়ে বাসায় গেলাম। আমার আর সাহস ছিলো না সর্নালী কে ফোন দেয়ার। পর দিন ক্যাম্পাস এ গিয়ে শুনি সর্নালী গতকাল দুপুরেই আত্মহত্যা করেছে।
তার পর আমি জানি না আমার কি হলো। রাস্তার সামনে দারালাম আর একটা ছুটুন্ত কার এর ধাক্কার শিব্দ কানে আসল। আমি আর জানি না। সপ্তাহ খানেক পড় আমি হসপিতাল এর বেড এ ছিলাম।
আমি জানি না এই ঘটনা কতজন কে কি বুঝাবে তবে এতটুকু বলছি , নারীরা ভোগ এর জিনিষ না।